English French German Italian Portuguese Russian Spanish

Related Articles

Search

কর্তৃপক্ষ নীরব পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা

Print
AddThis Social Bookmark Button

 

 

20th February, 2013

 

সীতাকুন্ড (চট্টগ্রাম) থেকে সৌমিত্র চক্রবর্তী :সীতাকু- জুড়ে জলাশয় ভরাটের মহোৎসব চলছে। গত ৫ বছরে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ভরাট হয়েগেছে ছোট-বড় শতাধিক জলাশয়। এতে স্থানীয় প্রাকৃতিক পরিবেশের উপর দারুন নেতিবাচকপ্রভাব পড়তে শুরু করেছে। একদিকে সৃষ্টি হয়েছে পানির অভাব আর অন্যদিকে ঊষ্ণতা বৃদ্ধিপেয়ে ফসল উৎপাদন ব্যাহত এবং হিট স্ট্রোকসহ গরমজনিত রোগ বেড়ে গেলেও প্রশাসননির্লিপ্ত। সীতাকুন্ড প্রতি মাসেই ভরাট হচ্ছে একাধিক জলাশয়। এভাবে গত ৫ বছরে শতাধিকছোট-বড় আকারের জলাশয় ভরাট হয়ে গেছে। এতে দিন দিন এলাকায় পানি সংকট দেখা দিচ্ছে।পরিদর্শনকালে স্থানীয়রা জানায়, জলাশয় ভরাটের হার বেশি সলিমপুর, ভাটিয়ারী ও সোনাইছড়িইউনিয়নে। এখানে শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের লক্ষ্যে ছোট পুকুর, দীঘি থেকে শুরু করেখাল ভরাটের ঘটনা ঘটছে অহরহ। শুধুমাত্র এ ৩ ইউনিয়ন এলাকায় গত কয়েক বছরে ৫০-৬০ জলাশয়ভরাটের ঘটনা ঘটেছে। ব্যক্তিগত পুকুর, সার্বজনীন দীঘি এবং সরকারি খাল ভরাট করে গড়েউঠেছে একের পর এক প্রতিষ্ঠান। ভাটিয়ারী হাসনাবাদ গ্রামের প্রবীণ ব্যক্তি মো. আনোয়ারহোসেন জানান, ভাটিয়ারীতে একসময় অসংখ্য পুকুর ছিলো। আমরা ছোটবেলায় এসব পুকুরে সাঁতারপ্রতিযোগিতা, ডুব খেলাসহ কতরকম মজা করতাম। একসময় চারিদিকে ছিলো অসংখ্য গাছপালা আরফসলি জমিও। কিন্তু এখন পুকুর জমি সব একসাথে ভরাট হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, এখানে শিল্পপ্রতিষ্ঠান তৈরি করার জন্য অনেকেই পুকুরসহ জলাশয় ভরাট করেছে। আবার জায়গা কমে যাওয়ায়অনেকে বাড়ি ঘর নির্মাণ করার জন্যও জলাশয় ভরাট করছে। শিপইয়ার্ড মালিকরা তাদের ইয়ার্ডসম্প্রসারণের জন্য ভরাট করছে খালও। কয়েক বছর আগে জেলেপাড়ার একটি খাল ভরাট নিয়ে অনেকঘটনাও ঘটে যায়। কিন্তু তবুও দখল বন্ধ হয়নি। প্রতি মাসেই কোন না কোন জলাশয় ভরাটহচ্ছে বলে এই বৃদ্ধ জানান। সোনাইছড়ি ইউনিয়নের বারআউলিয়া ফুলতলার বাসিন্দামো.আলাউদ্দিন বলেন, গত ১৫-১৬ বছর আগেও এ ইউনিয়নে অনেক জলাশয় ছিলো। জোরআমতল এলাকায়অবস্থিত মাহানপুরা খাল ভরাটের প্রক্রিয়া এখনো চলছে বলে জানান আলাউদ্দিন। এদিকেদক্ষিণ সীতাকু-ে শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপনের কারণে জলাশয় ভরাট বেড়ে গেলেও এই হারউপজেলার অন্যসব স্থানেও একেবারে কম নয়। সীতাকু- পৌরসদর, বাড়বকু-, মুরাদপুরসহসর্বত্র কমবেশি জলাশয় ভরাট হচ্ছে। মাত্র কয়েকদিন আগে পৌরসদরের দত্তবাড়ি এলাকায় একটিপুকুর জোর পূর্বক দখল ও ভরাটের অভিযোগে মামলা করে সীতাকু- স্রাইন কমিটি। চন্দ্রনাথতীর্থ কমিটির সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট সুখময় চক্রবর্তী জানান, পৌর এলাকায় ২জনপ্রতিনিধি অবৈধভাবে পুকুরটি দখল ও ভরাটের চেষ্টা করায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করাহয়েছে। গত এক বছরেই পৌরসদরে অন্তত ১০ পুকুর ভরাট হয়ে গেছে। আরো কয়েকটি ভরাটেরপ্রক্রিয়া চলছে। এলাকাবাসী আরো জানায়, ভরাটের কবলে পড়ে হারিয়ে গেছে বাড়বকুকুন্ডররাজার দীঘির মত ঐতিহ্যবাহি দীঘিও। সলিমপুর ফকিরহাটসহ কিছু কিছু এলাকায় পানি সংকটপ্রবল হয়ে উঠছে। যা কৃষি ও জনজীবনের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে। এ বিষয়ে সীতাকু-উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. নজরুল ইসলাম বলেন, অনেকে আইন না মেনে লুকিয়ে ভরাটকরে ফেলে। জলাধার বিষয়ে পরিবেশের সুনির্দ্বিষ্ট আইনও আছে। মূলত পরিবেশ অধিদপ্তরই এবিষয়ে ব্যবস্থা নিয়ে থাকে। তবে অভিযোগ পেলে আমরাও ব্যবস্থা নিয়ে থাকি। কয়েকদিন আগেস্রাইন কমিটির পুকুরটি ভরাটের বিষয়েও মামলা হয়েছে বলে তিনি জানান। নিজেদের অস্তিত্বরক্ষার জন্যই সকলের জলাশয় ভরাট থেকে দূরে থাকা উচিত বলে তিনি মনে করেন।

 

 

 


 

Source: dailyinqilab

 


 

{jcomments on}

| + - | RTL - LTR